বৃহস্পতিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২

সাঁওতাল বিদ্রোহের ফলাফল ও গুরুত্ব আলােচনা কর ।

Clg history questions answers কলেজ প্রশ্নোত্তর সাঁওতাল বিদ্রোহের ফলাফল ও গুরুত্ব আলােচনা কর santal bidroher pholaphol o gurutto alochona koro


উত্তর : উনিশ শতকের প্রথমার্ধে সংগঠিত আদিবাসী বিদ্রোহগুলির মধ্যে সবচেয়ে ব্যাপক ও রক্তক্ষয়ী ছিল সাঁওতাল বিদ্রোহ । উনিশ শতকের প্রথমে সাঁওতালগণ ছােটনাগপুর অঞ্চলে সাঁওতালরা জমিদার , গােমস্তা, পিওন , মহাজন , পুলিশ , রাজস্ব - আদায়কারীদের শােষণ ও অত্যাচারের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলেছিল তা ব্যর্থ হলেও এর পরােক্ষ ফল ছিল সুদূরপ্রসারী । ঐতিহাসিক ড. কালীকিঙ্কর দত্ত  বলেন যে , বাংলা ও বিহারের ইতিহাসে এই বিদ্রোহ এক নবযুগের সূচনা করে । প্রথমত , ড . দত্ত-র মতে , এই বিদ্রোহকে ‘গুরুত্বহীন আঞ্চলিক বিদ্রোহ’বলা অনুচিত । এই বিদ্রোহ দীর্ঘ ছয় মাস ধরে সরকার , জমিদার ও স্থানীয় জনসাধারণের মধ্যে গভীর ত্রাসের সঞ্চার করে । এই বিদ্রোহে বহু অর্থ ও লােকক্ষয় হয় এবং সরকারি রাজস্বের ওপর প্রবল চাপ পড়ে । সেনাবাহিনী ও সরকার কার্যত বিপর্যস্ত হয়ে যায় । 

দ্বিতীয়ত , বিদ্রোহ কেবল সাঁওতালদের মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল না । উইলিয়াম হান্টার বলেন যে, সাঁওতাল ও হিন্দুসম্প্রদায়ের মধ্যবর্তী আধা - আদিবাসী শ্রেণি ও নিম্নবর্ণের দরিদ্র হিন্দুরাও এই বিদ্রোহে যােগ দেয় । অধ্যাপক নরহরি কবিরাজ - এর মতে , “সাঁওতাল বিদ্রোহ আপসহীন গণসংগ্রামের এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত ।” 

তৃতীয়ত , বিদ্রোহ দমনের পর কর্তৃপক্ষ সাঁওতালদের সম্পর্কে কিছুটা নমনীয় মনােভাব গ্রহণ করে । সাঁওতাল -অধ্যুষিত এলাকা নিয়ে সাঁওতাল পরগণা জেলা গঠন করা হয়। তাদের পৃথক ‘উপজাতি’ হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয় । সুদের হার বেঁধে দেওয়া হয় এবং ঘােষণা করা হয় যে , এখানে ব্রিটিশ আইন কার্যকর হবে না । এখানে ইউরাপীয় মিশনারি ছাড়া অন্য কারাে প্রবেশ নিষিদ্ধ হয় । এই অঞ্চলে বাঙালি মহাজনদের বসবাস নিষিদ্ধ হয় । এইভাবে ভারতীয় জনজীবন থেকে সাঁওতালদের বিচ্ছিন্ন করে সরকার তাদের অনুন্নত অবস্থাতেই রেখে দেয় । 


চতুর্থত , এই অঞ্চলে খ্রিস্টান মিশনারিরা সক্রিয় হয়ে ওঠে এবং সাঁওতালদের খ্রিস্টধর্মে দীক্ষিত করে তাদের মনে ব্রিটিশ শাসনের প্রতি আনুগত্যবােধ সৃষ্টিতে তৎপর হয় । 


পঞ্চমত , ড . রমেশচন্দ্র মজুমদার - এর মতে , যদি ১৮৫৭ খ্রিস্টাব্দের মহাবিদ্রোহকে যদি স্বাধীনতা সংগ্রাম বলা হয়, তবে সাঁওতালদের সুকঠিন এই সংগ্রামকে স্বাধীনতা সংগ্রামের মর্যাদা দেওয়া উচিত । সুপ্রকাশ রায় বলেন , “এই বিদ্রোহ সমগ্র ভারতবর্ষে ইংরেজ শাসনের ভিত্তিমূল পর্যন্ত কাঁপাইয়া দিয়াছিল এবং ইহা ছিল ভারতের যুগান্তকারী মহাবিদ্রোহের অগ্রদূত স্বরূপ ।





কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন