রবিবার, ২৩ অক্টোবর, ২০২২

সিন্ধু সভ্যতা অতি সংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর

Clg history questions answers কলেজ ইতিহাস সিন্ধু সভ্যতা অতি সংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর sindhu sovyota


প্রশ্ন । ভারতের ইতিহাসে সিন্ধু সভ্যতার আবিষ্কারের গুরুত্ব কি ? এই সভ্যতার সমসাময়িক কয়েকটি সভ্যতার নাম লিখ । 

উত্তর : সিন্ধু সভ্যতার ধ্বংসাবশেষ আবিষ্কার ভারতীয় সভ্যতার বিকাশ ও অগ্রগতির ইতিহাস উদ্বাটনে একটি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা । এই সভ্যতা আবিষ্কৃত হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত ধারণা ছিল যে ভারতীয় সভ্যতার ইতিহাস বৈদিক যুগ থেকে শুরু । কিন্তু সিন্ধু সভ্যতা যে প্রাক্ বৈদিক সভ্যতা আবিষ্কৃত হওয়ার ফলে ভারতীয় সভ্যতা বিকাশের কাল আরও অনেক বেশি বলে প্রমাণিত হয় ।

ভারতের প্রাচীনতম এই সভ্যতা সুমেরীয় , ব্যাবিলনীয় মিশরীয় প্রভৃতি সভ্যতার সমসাময়িক বলে স্বীকৃত হয়েছে । 


প্রশ্ন । সিন্ধুসভ্যতার বিস্তৃতি সম্বন্ধে কি জান ? 

উত্তর : সিন্ধুসভ্যতা এক বিশাল এলাকাজুড়ে বিস্তৃত ছিল । এই সভ্যতা সিন্ধু ,পাঞ্জাব , বালুচিস্তান, রাজস্থান , গুজরাট সৌরাষ্ট্র ও নর্মদা উপত্যকার এক বিরাট অঞ্চলে বিস্তৃত ছিল । উত্তরে জম্মু থেকে দক্ষিণে নর্মদা উপত্যকা এবং পশ্চিমে বালুচিস্তানের মাকরান থেকে পূর্বে মীরাট পর্যন্ত এর ব্যাপ্তি ছিল । এই সভ্যতার দুটি প্রধান কেন্দ্র ছিল মহেঞ্জোদরাে ও হরপ্পা । 


প্রশ্ন । সিন্ধুসভ্যতার বিকাশের কাল সম্বন্ধে কি জান ? 

উত্তর : কোন লিখিত তথ্যের অভাবের জন্য প্রত্নতত্ত্ববিদগণ ঐ যুগে ব্যবহার দ্রব্যসামগ্রীর ওপর ভিত্তি করে সময়কাল নির্ধারণ করেন । বর্তমান ‘কার্বন-১৪’ পদ্ধতির সাহায্যে বৈজ্ঞানিক ভিত্তিতে সময়কাল নির্ধারণের প্রয়াস দেখা যায় । আনুমানিক ৩০০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ থেকে ১৫০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ পর্যন্ত হরপ্পা সভ্যতার কালসীমার ব্যপ্তি ধরা হয় ।


প্রশ্ন । হরপ্পাসংস্কৃতি ও বৈদিক সংস্কৃতির কোনটি গ্রামীণ এবং কোনটি নাগরিক ?

উত্তর : হরপ্পা সংস্কৃতি নাগরিক এবং বৈদিক সংস্কৃতি গ্রামীণ । 


প্রশ্ন : সিন্ধুসভ্যতার আবিষ্কারক দুজন প্রত্নতত্ত্ববিদের নাম উল্লেখ কর । 

উত্তর : ১৯২১ খ্রিস্টাব্দে দয়ারাম সাহানী হরপ্পার এবং ১৯২২ খ্রিস্টাব্দে রাখালদাস বন্দোপাধ্যায় মহেঞ্জোদারাের ধ্বংসাবশেষ আবিষ্কার করেন । এই সময় ভারতীয় প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের অধিকর্তা ছিলেন স্যার জন মার্শাল । 


প্রশ্ন । ভারতের প্রাচীনতম সভ্যতার দুটি কেন্দ্রের নাম লিখ । 

উত্তর : ভারতের প্রাচীনতম সভ্যতার দুটি কেন্দ্রের নাম হল মহেঞ্জোদারাে ও হরপ্পা । বর্তমান পাকিস্তানের অন্তর্গত সিন্ধুপ্রদেশের লারকানা জেলায় মহেঞ্জোদারাে এবং পাঞ্জাবের মন্টোগােমারি জেলার হরপ্পায় প্রত্নতাত্ত্বিক খননকার্যের ফলে ভারতের প্রাচীনতম সভ্যতা অর্থাৎ সিন্ধুসভ্যতার আমলের দুটি নগরীর ধ্বংসাবশেষ আবিষ্কৃত হয়েছে ।  


প্রশ্ন । সিন্ধু সভ্যতাকে কেন হরপ্পা সভ্যতা বলা হয় ? 

উত্তর : সিন্ধু অঞলে প্রাপ্ত সভ্যতা ও সংস্কৃতির সকল বৈশিষ্ট্যই হরপ্পা অঞ্চলের প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শনের মধ্যে পাওয়া গিয়েছে । সেজন্য এই সভ্যতাকে হরপ্পা সভ্যতাও বলা হয় ।  


প্রশ্ন । সিন্ধু অঞ্চলে নাগরিক জীবনের কি কি নিদর্শন দেখা যায় ?

উত্তর : সিন্ধু অঞ্চলে ভারতের প্রথম নাগরিক সভ্যতা গড়ে ওঠেছিল । এই সভ্যতার বৈশিষ্ট্যগুলাে বিশেষভাবে লক্ষণীয় । প্রশস্ত ও পরিকল্পিত রাজপথের সঙ্গে অপরিসর গলি , তিনতলা পর্যন্ত বাড়ি তৈরির ব্যাপারে আগুনে পােড়া ইটের ব্যবহার, জল ও আবর্জনা নিষ্কাশনের জন্য উন্নত পয়প্রণালী ব্যবস্থা এবং বৃহৎ স্নানাগার প্রভৃতি উন্নতনাগরিক জীবনের পরিচয় দেয় । 

প্রশ্ন । সিন্ধু সভ্যতা ধ্বংসের কারণগুলাে কি ?

উত্তর : সিন্ধুসভ্যতা ধ্বংসের কারণ সম্পর্কে পণ্ডিত মহলে মতভেদ দেখা যায় । পণ্ডিতের মতে সিন্ধু অঞলের বনসম্পদের বিনাশ , বৃষ্টিপাতের স্বল্পতায় ঐ অঞলের মরুভূমিতে পরিণত হওয়া , নাগরিক জীবনের অবহেলা , সিন্ধুনদের বন্যা ও আর্যদের আক্রমণ সিন্ধুসভ্যতার ধ্বংসের কারণরূপে দেখা দেয় । 

সংক্ষেপে বলা যায় যে , বৃষ্টিপাতের স্বল্পতা ও সিন্ধু নদের বন্যা সিন্ধু সভ্যতার পক্ষে সঙ্কটের কারণরূপে দেখা দেয় । পরে আর্যদের আক্রমণের ফলে এই সভ্যতা ধ্বংস হয় । 

প্রশ্ন । সিন্ধু সভ্যতার নিদর্শন কোথায় কোথায় আবিষ্কৃত হয়েছে ?  

উত্তর : মহেঞ্জোদারাে ও হরপ্পা ছাড়াও আরব সাগরের তীরে অবস্থিত সুৎকাজেনদোর , বালুচিস্তান , রুপার , ভাওয়ালপুর , বিকানীর প্রভৃতি স্থানে আবিষ্কৃত হয়েছে । তাছাড়া বক্সার, পাটনা , গাজীপুর , বেনারস প্রভৃতি স্থানেও সিন্ধু সভ্যতার নিদর্শন আবিষ্কৃত হয়েছে ।


কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন